শুক্রবার, ০১ Jul ২০২২, ১১:১০ পূর্বাহ্ন

পদ্মা সেতু: ১৩ রুটের বাসভাড়া নির্ধারণ

পদ্মা সেতু: ১৩ রুটের বাসভাড়া নির্ধারণ

নিউজ ডেস্ক।।
পদ্মা সেতু হয়ে যেসব বাস চলবে তার ভাড়া নির্ধারণ করেছে সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। রাজধানী ঢাকার সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে মাওয়া ফেরিঘাট হয়ে চলাচল করে এমন ১৩ রুটের ভাড়ার তালিকা করা হয়েছে। ঢাকা শহর হয়ে চললে যানজট বাড়বে- এই যুক্তিতে গাবতলী টার্মিনাল থেকে চলা বাস পদ্মা সেতু হয়ে চলতে রুট পারমিট পাবে না। গাবতলীর বাস আরিচা ঘাট হয়ে চলবে।

মঙ্গলবার (৭ জুন) বিআরটিএর পরিচালক (প্রকৌশল) শীতাংশু শেখর বিশ্বাসের সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তি অনুসারে, ঢাকা-ভাঙ্গা-মাদারীপুর-বরিশাল রুটে চলাচলকারী বাসে একজন যাত্রীর ভাড়া হবে ৪১২ টাকা ৩২ পয়সা। ঢাকা-রাজৈর-গোপালগঞ্জ রুটের বাসে চলাচলকারী ভাড়া দাঁড়াবে ৫০৪ টাকা ২১ পয়সা। একইভাবে ঢাকা-গোপালগঞ্জ-খুলনা রুটের বাসে যাত্রীপ্রতি ভাড়া ৬৪৯ টাকা ৩৬ পয়সা, ঢাকা-জাজিরা-শরীয়তপুর রুটের বাসে ভাড়া ২১৮ টাকা ৫৩ পয়সা, ঢাকা-বরিশাল-পিরোজপুর রুটের বাসে ভাড়া ৫৩৪ টাকা ২০ পয়সা, ঢাকা-গোপালগঞ্জ-পিরোজপুর-বাগেরহাট রুটের ভাড়া ৬২৮ টাকা ২৫ পয়সা, ঢাকা-বরিশাল-পটুয়াখালী রুটের ভাড়া ৫০১ টাকা ৫২ পয়সা, ঢাকা-ভাঙ্গা-মাদারীপুর রুটের ভাড়া ৩২৭ টাকা ৫০ পয়সা, ঢাকা-গোপালগঞ্জ-খুলনা-সাতক্ষীরা রুটের ভাড়া ৬৩৩ টাকা ৫ পয়সা, ঢাকা-ভাঙ্গা-ফরিদপুর রুটের ভাড়া ২৮৮ টাকা ৩৯ পয়সা, ঢাকা-মাদারীপুর-বরিশাল-ভোলা-চর ফ্যাশন রুটের ভাড়া ৬৫৩ টাকা ৮৬ পয়সা, ঢাকা-বুড়িগঙ্গা দ্বিতীয় সেতু-শরীয়তপুরের ভাড়া ২১৯ টাকা ৮৮ পয়সা এবং ঢাকা-মাদারীপুর-বরিশাল-পটুয়াখালী-কুয়াকাটা রুটে যাত্রীপ্রতি বাস ভাড়া দিতে হবে ৬৯৪ টাকা ২৯ পয়সা।

বিআরটিএর পরিচালক (প্রকৌশল) শীতাংশু শেখর বিশ্বাসের সই করা বিজ্ঞপ্তিতে বাসগুলোর ঢাকার স্টেশন ধরা হয়েছে সায়েদাবাদ। অর্থাৎ এখান থেকে ছেড়ে যাওয়া বাসগুলোর ক্ষেত্রে এ ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে ব্যবহারের জন্য সরকার নতুন করে টোল আরোপ করলে বাস ভাড়া আবার বাড়তে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেছেন, যানজটের কারণে শহরের ভেতর দিয়ে নতুন রুট পারমিট দেওয়া হচ্ছে না। গাবতলীর বাস সায়েদাবাদে সরিয়ে নেওয়ার সুযোগ নেই। ফলে ওই টার্মিনালের বাস পদ্মা সেতুর সুফল পাবে না।
রাজধানীকে পাশ কাটিয়ে চলতে ঢাকার চারদিকে বৃত্তাকার সড়ক (ইনার সার্কুলার রুট) নির্মাণের পরিকল্পনা প্রায় তিন দশকের পুরোনো। ৮৮ দশমিক ৮ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সড়ক টাকার অভাবে হচ্ছে না। গাবতলীর গাড়ি যাতে শহর এড়িয়ে পদ্মা সেতুতে উঠতে পারে সেজন্য বেড়িবাঁধ সড়কের গাবতলী থেকে বছিলা, হাজারীবাগ, সোয়ারীঘাট অংশকে ছয় লেনে উন্নীত করা এবং সোয়ারীঘাট থেকে এক্সপ্রেসওয়ের কদমতলী অংশ পর্যন্ত উড়াল সড়ক ও সেতুর নির্মাণ কাজ একই কারণে শুরু করা যাচ্ছে না। দুই বছর আগে এই ১২ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণের সমীক্ষা শেষ হয়েছে।

ঋণ না পেয়ে সরকারি অর্থায়নে প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রস্তাব করতে যাচ্ছে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর (সওজ)।

উত্তরবঙ্গ থেকে আসা গাড়ি শহরের বাইরে দিয়ে পদ্মা সেতুতে নিতে বছিলা থেকে কেরানীগঞ্জের কলাতিয়া-রুহিতপুর সড়ককে ১৮ থেকে ২৪ ফুটে উন্নীত করা হয়েছে। তবে সরেজমিন দেখা গেছে, ঘরের জানালা, বারান্দা, কার্নিশ, চাল ঘেঁষে সড়ক নির্মিত হয়েছে। দূরপাল্লার বাস ও ভারী যানবাহন চলাচলে বাড়িঘরে গাড়ি উঠে দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে।

সওজের প্রধান প্রকৌশলী এ কে এম মনির হোসেন পাঠান বলেন, যথাযথ মানে প্রশস্তকরণ প্রকল্পের আওতায় সড়ক চওড়া করা হয়েছে। এই প্রকল্পে জমি অধিগ্রহণের সুযোগ ছিল না। সাময়িক ব্যবস্থা হিসেবে এই সড়ক চওড়া করা হয়েছে। সিলেট ও চট্টগ্রামের বাস সায়েদাবাদ দিয়ে পোস্তগোলা হয়ে পদ্মা সেতুতে যেতে পারবে। তবে ময়মনসিংহ অঞ্চলের ছয় জেলার গাড়ি ঢাকা শহরের যানজট না ঠেলে পদ্মা সেতুতে যাওয়ার পথ নেই।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




raytahost-demo
© All rights reserved © 2019
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD