শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ১১:৪৮ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
জবি ক্যারিয়ার ক্লাবের ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ শান্তিতে আছে: তথ্যমন্ত্রী খুলনার দাকোপের বাজুয়া খুটাখালী আর্যহরিসভায় শ্রীকৃষ্ণের জন্মদিন শুভ জন্মাষ্টমী পালিত কিশোরগঞ্জে শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা সরকার দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করতে বদ্ধপরিকর কসবায় ৩৬ কেজি গাঁজা, ৯৫ বোতল স্কফসহ ৬ মাদক কারবারি গ্রেফতার স্কুলে দশম শ্রেণির ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত: প্রতিবাদ করায় ছোট ভাইকে কুপিয়ে জখম অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাদ্য উৎপাদন করায় হোটেল মালিককে জরিমানা প্রয়োজনে ডিম আমদানি, শিগগির ভোজ্যতেলের দাম পুনর্নির্ধারণ: বাণিজ্যমন্ত্রী ডিসিদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনার তথ্যটি গুজব: মন্ত্রণালয়
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

নিউজ ডেস্ক।।
জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ সোমবার (১০ জানুয়ারি) রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান তিনি। এসময় তার সঙ্গে বোন শেখ রেহানাও শ্রদ্ধা জানান।

১৯৭২ সালের এ দিন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তিলাভ করে বাংলাদেশের মাটিতে পৌঁছান। এর আগে ভারতের দিল্লিতে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে দেখা করেন এবং দেশটির হিন্দিভাষী জনসাধারণের আগ্রহে বাংলা ভাষায় ভাষণ দেন। প্রতি বছরই দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করে আসছে আওয়ামী লীগ। এবার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের ৫০ বছরে এসেও দলটি সাড়ম্বরে দিনটি পালন করেছে।

বাঙালি জাতির বিরুদ্ধে পশ্চিম পাকিস্তানের শোষণ, বঞ্চনা আর নির্যাতনের সাহসী প্রতিবাদ করে গেছেন বঙ্গবন্ধু। কারাগারে নিজের কবর খনন করতে দেখেও বিচলিত হননি তিনি। শুধু বলেছিলেন- দেশের মাটিতে আসতে চাই। এ দেশের মা ও মাটির গন্ধ নিতে চাই। দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের পর অবশেষে পাকিস্তানিদের ওপর বিজয় অর্জন করে বাঙালি। বিজয়ের আনন্দে উদ্বেল হয়ে ওঠে জাতি। কিন্তু কোথাও অপূর্ণতা রয়েই গিয়েছিলো। আর সে অপূর্ণতা হলো স্বাধীন মাতৃভূমিতে জাতির পিতার অনুপস্থিতি। জাতির পিতা কারাগারে থাকায় বিজয়ের আনন্দ যেন ম্লান হয়ে যাচ্ছিলো। অবশেষে ‘রাজনীতির কবি’ ফিরলেন আপন মাতৃভূমিতে। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয়ের আনন্দ পূর্ণতা পায় ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি।

এ কথা শিরোধার্য যে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ছিলো স্বাধীনতার দূরদর্শী রূপরেখা। আর ২৬ মার্চ বর্বর পাক-সেনারা নিরস্ত্র বাঙালির ওপর সশস্ত্রভাবে ঝাঁপিয়ে পড়লে গ্রেপ্তার হওয়ার পূর্বমুহূর্তে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র লিখে তারবার্তা সহযোগে চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্রে পাঠিয়ে দেন।

এরপর জাতির পিতার স্বাধীনতার ঘোষণায় উদ্বুদ্ধ হয়ে পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে অংশ নেন বাঙালিরা। অবশেষে আসে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। বিশ্বের মানচিত্রে অঙ্কিত হয় নতুন এক দেশ- বাংলাদেশ

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




raytahost-demo
© All rights reserved © 2019
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD